চীনে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে, শহর লকডাউন

মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন জারি করা হয়নি, এমন শহর বিশ্বে হাতে গোনা। চীনের সাংহাইও ছিল তেমন একটি শহর। কিন্তু করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় এবার সেই শহরে প্রথমবারের মতো লকডাউন ঘোষণা করেছে চীন সরকার। সোমবার (২৮ মার্চ) সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সাংহাইয়ে দুই দফায় ৯ দিনের বেশি লকডাউন জারি থাকবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এ সময় শহরটির বাসিন্দাদের করোনা পরীক্ষা করা হবে। চীনের গুরুত্বপূর্ণ এবং বৃহত্তম এই সাংহাই শহরে গত একমাস ধরে ধারাবাহিকভাবে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। শনিবারও (২৬ মার্চ) শহরটিতে একদিনে রেকর্ডসংখ্যক করোনা রোগী শনাক্ত হয়। পরিস্থিতি বিবেচনায় সেখানে লকডাউন দিতে বাধ্য হলো কর্তৃপক্ষ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, লকডাউন কার্যকর করা হবে দুই ধাপে। প্রথম ধাপে সোমবার (২৮ মার্চ) থেকে ১ এপ্রিল পর্যন্ত সাংহাইয়ের পূর্বাঞ্চলে লকডাউন জারি থাকবে। আর ১ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন জারি থাকবে শহরটির পশ্চিমাঞ্চলে। এ সময় গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। বন্ধ রাখতে হবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও কারখানা। তবে ঘরে থেকে কাজ করা যাবে। এদিকে সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী কমে এসেছে করোনার তাণ্ডব। গত কয়েকদিন ধরে আক্রান্ত-মৃত্যুও কমতির দিকে। সোমবার (২৮ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯ লাখ ৮৯ হাজার ৫১২ জন। এ সময় মারা গেছেন আরও ২ হাজার ৩২৬ জন। আগের দিন রোববার (২৭ মার্চ) সকাল ৯টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ১২ লাখ ২৯ হাজার ৬৭০ জন। এ সময় মারা যান ৩ হাজার ৬৫ জন। এর আগে শনিবার (২৬ মার্চ) করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ১৫ লাখ ৮৭ হাজার ৭৩৩ জন। এ সময় মৃত্যু হয়েছিল ৪ হাজার ৫৬৬ জনের। যা আগের দিনের চেয়ে কিছুটা কম। এছাড়া শুক্রবার (২৫ মার্চ) করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ১৬ লাখ ৯৪ হাজার ৩১৮ জন। এ সময় মৃত্যৃ হয়েছিল ৪ হাজার ৮৩০ জনের। এর আগে গত কয়েক দিন ধরেই আক্রান্ত ও মৃত্যু নিম্নমুখী। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখার ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্যে দেখা গেছে, সোমবার (২৮ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত সারা বিশ্বে করোনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৪৮ কোটি ১৮ লাখ ৫৯ হাজার ১৯১ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৪১ কোটি ৬২ লাখ ৮৮ হাজার ২৬৬ জন। এ ছাড়া মারা গেছেন ৬১ লাখ ৪৭ হাজার ৮৮০ জন।

সর্বশেষ সংবাদ