বগুড়ায় বাড়ি ভাড়া উত্তোলনে বাধা দেয়ায় সংবাদ সম্মেলন

বগুড়ায় বাড়ি ভাড়া উত্তোলনে বাধা দেয়ায় সংবাদ সম্মেলন করেছে সদরের কামাড়গাড়ী এলাকার রাজু আহম্মেদের ছেলে নাফিউর রহমান। বুধবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে বগুড়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়।
উক্ত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার পিতা রাজু আহমেদ একজন মাদক সেবক। সে কারণে ২০১০ সালে আমার মায়ের সাথে ডিভোর্স হয়। পরবর্তীতে ২০১৩ সালে আবারও বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। তার আচরণে আমার দাদা মৃত হাজী রমজান আলী তিক্ত বিরক্ত। ২০১৭ সালে আমার দাদা মৃত হাজী রমজান আলী জীবিত থাকা অবস্থ্য়া বগুড়া সদরের চকবৃন্দাবন মৌজায় ৩ শতাংশ জায়গাসহ চারতলা ভবন আমার নামে হেবা দলিল সম্পন্ন করে দেয়। খাজনা খারিজসহ সমস্ত কাগজপত্র আমার নামে রেকর্ডভুক্ত হয়েছে।
আমি গত ২১ নভেম্বর ২০২১ ইং তারিখে রেজিষ্ট্রি মুলে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই এবং গত ১৭ ডিসেম্বর আমার বিবাহিত স্ত্রীকে বাড়িতে তুলে নিয়ে আসি। পরিবারের সম্মতিতে বিবাহ কার্য সম্পন্ন করেছি। আমার স্ত্রী মনিষা আক্তার চৈতী (১৮) অত্যন্ত সৎ ও স্বামীভক্ত নারী। আমি প্রায় ৬ লক্ষ টাকা বিবাহ সম্পন্ন কালীন সময়ে ঋণ করি। পরবর্তীতে ঋণের জন্য ঋণ প্রদানকারী আমাকে ধার পরিশোধ করতে বলেন। যেহেতু আমার নিজস্ব চারতলা ভবন ভাড়া দেয়া আছে, ভাড়া উত্তোলন করে টাকা পরিশোধের সিদ্ধান্ত আমার বাবাকে জানায়।
আমি অবিবাহিত থাকা অবস্থায় আমার পিতা দীর্ঘদিন যাবত আমার বাসার ভাড়ার সমস্ত টাকা নিজেই ভোগ করে আসছেন এবং বিবাহ পরবর্তিতে বাসা ভাড়া চাইলেই আমাকে মারবে, কাটবে, আমাকে রিহ্যাব সেন্টারে আটকিয়ে রাখবে সহ বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি প্রদান করে। এর পাশাপাশি আমার স্ত্রীকে মানসিকভাবে নির্যাতনসহ তাকে তালাক প্রদান করতে বলে।
এমত পরিস্থিতিতে সমাজের দু’একজন গন্যমান্য ব্যক্তিকে জানালে সমাধানের জন্য বসার সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্ত শেষে বিবাহকালীন ঋণ পরিশোধসহ বর্তমানে আমার বাসা ভাড়া আমি নিজেই উত্তোলন করতে পারব। কিন্তু পরবর্তিতে বৈঠকের সকল সিদ্ধান্ত অমান্য করে চারতলার বাসা ভাড়া উত্তোলন করে এবং আমাকে ও আমার স্ত্রীকে বিভিন্নভাবে অত্যাচার করতে থাকে।
আমি বাসায় থাকাকালীন ১০/১২টি মোটর সাইকেলযোগে সন্ত্রাসীরা আমাকে মারার জন্য বাসার সামনে অবস্থান নেয়। আমি ও আমার স্ত্রীসহ কৌশলে জান নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে আসি। পরবর্তীতে বগুড়া সদর থানায় গত ১৩ মার্চ ২২ ইং তারিখে হাজির হয়ে ৭৫৯ নং সাধারণ ডায়েরী করি এবং পরবর্তীতে একটি অভিযোগ দায়ের করি। বর্তমানে আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমাকে বিভিন্ন মোবাইল নাম্বার থেকে প্রান নাশের হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে। যা আমার মোবাইলে কল রেকর্ড আছে।
নিজস্ব চারতলা বাড়ি ভাড়া উত্তোলন ও বাড়িতে শান্তিপ্রিয় ভাবে স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করার জন্য জেলা প্রশাসন, আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনীসহ জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা কামনা করছি।

সর্বশেষ সংবাদ