বগুড়ার মহাস্থানহাটে টোল আদায়কে কেন্দ্র করে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া আহত ৩

স্টাফ রিপোর্টারঃ বুধবার বেলা ১২ টায় বগুড়ার মহাস্থান সরকারী হাটে অতিরিক্ত টোল আদায় করা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় গুরুত্বর আহত ৩, হাসপাতালে ভর্তি, থানায় মামলার প্রস্তুতি। আইন শৃংঙ্খলা রক্ষায় হাটে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
জানা গেছে, বাংলা ১৪২৯ সনে উত্তর বগুড়ার ঐতিহ্যবাহী মহাস্থান হাটটি ৪ কোটি ৩১ লাখ টাকায় ইজারা নেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু। গত ১ বৈশাখ নতুন বছরের হাটে টোল আদায় নিয়ে মারধরের ঘটনা ঘটে। এঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করেন হাট পরিচালনা কমিটির পক্ষে রায়নগর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান মটু।
গত মঙ্গলবার (১০ মে) শিবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ  চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু ও উপজেলা  সহকারি কমিশানার (ভূমি) আজাহার আলী,রায়নগর ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম শফি,ইউপি সদস্য আলমগীর হোসেন লালু,বেলাল মন্ডল সহ রায়নগর ইউপির সকল  সদস্য সহ মহাস্থান  বণিক সমিতির নেতৃবৃন্দ মহাস্থান সরকারী হাটে টোল আদায়ের সরকারি নোটিশ টাঙ্গিয়ে দেন।
বুধবার (১১ মে) সকালে হাট শুরু হলে  সরকারি তালিকা অনুয়ায়ী উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে টোল আদায় এবং প্রদানের জন্য হাটে আসা ক্রেতা বিক্রেতাদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। এনিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এক পর্যায় মহাস্থান বণিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মহাস্থান প্রতাববাজু গ্রামের আব্দুর রশিদের পুত্র  জিয়াউর রহমান জিয়া(৩৮) ,গোকুল উত্তরপাড়ার সায়েদ আলীর পুত্র আপেল মাহমুদ(৩৫) ও গোকুল উত্তর পাড়ার চিকা’র পুত্র ফুয়াদ(২৫) কে এলোপাতারী ভাবে মারধর করা হয়।
আহতদের মধ্য জিয়াউর রহমান জিয়ার অবস্থা আশংকাজনক। স্থানীয় লোকজন আহত জিয়াকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে দেন। এর জের ধরে দুই পক্ষের মধ্যে শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া। এসময় হাটে আসা লোকজন মালামাল ফেলে দৌড়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নেন। খবর পেয়ে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।
আহত জিয়ার পরিবার সূত্র জানান, মহাস্থান হাটে অতিরিক্ত টোল আদায় করা হচ্ছে ব্যবসায়ীদের দাবির প্রেক্ষিতে বুধবার হাটে বণিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়াকে বললে সে হাটে খাজনা আদায় কারীদের কাছে এর  প্রতিবাদ করেন  এর জের ধরে হাট  ইজারাদারের লোকজন জিয়াকে মারধর করে তার ডান পা ভেঙে দিয়েছে, মাথায় গুরুতর আঘাত করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। এই ঘটনায় আহত জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।