খুলনায় ৩ গোডাউনে মিললো ৭৩ হাজার লিটার সয়াবিন তেল

খুলনার বড় বাজার এলাকার ৩টি গোডাউনে ৭৩ হাজার ৩২ লিটার সয়াবিন এবং ১ লাখ ৬৩ হাজার ৬০৮ লিটার পামওয়েল অবৈধভাবে মজুদ পেয়েছে জেলা প্রশাসন ও র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। তেল মজুদ রাখার অপরাধে ৩টি প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (১২ মে) দুপুরে খুলনার বড় বাজারে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দেবাশীষ বসাক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, তিন প্রতিষ্ঠানে তেল মজুদ রাখায় তাদেরকে জরিমানার পাশাশাশি সঠিকমূল্যে তে বিক্রির জন্য বলা হয়েছে। র‌্যাব ৬ এর পু‌লিশ সুপার আল আসাদ মোঃ মাহফুজুল ইসলাাম ব‌লেন, গোপন সংবা‌দের ভি‌ত্তিতে জান‌তে পেরে এ অ‌ভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ৩ টি প্রতিষ্ঠানে ৭৩ হাজার ৩২ লিটার সয়া‌বিন ও ১ লাখ ৭৩ হাজার ৬০৮ লিটার পাম ওয়েল মজুদের প্রমাণ মিলেছে। এ কারণে তিন প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা জ‌রিমানা করা হয়েছে। তি‌নি আরও বলেন, সরকরি নিয়ম নী‌তি উ‌পেক্ষা ক‌রে খুলনার ব্যবসায়ীরা বাজা‌রে কৃ‌ত্রিম সংকট সৃষ্টি কর‌ছে। তাই ভবিষ্যতে এ সংকট তারা তৈ‌রি না কর‌তে পারে তাই তাদের জ‌রিমানা করা হ‌য়ে‌ছে। ত‌বে জনস্বা‌র্থে অ‌ভিযান অব্যাহত থাক‌বে। আল আসাদ মোঃ মাহফুজুল ইসলাাম জানান, অভিযানকালে সাহা ট্রেডার্সে ৩১ হাজার ৬০০ লিটার সয়াবিন ও ৬৩ হাজার ৩০০ লিটার পাম অয়েল তেল মজুত পাওয়া যায়। এর দায়ে প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী দিলিপ কুমার সাহাকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া সোনালী এন্টারপ্রাইজে ২৬ হাজার ৭৮০ লিটার সয়াবিন ও ৩১ হাজার ৮০০ লিটার পাম অয়েল মজুত পাওয়া যায়। এর দায়ে প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী প্রদীপ সাহাকে ৯০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। রণজিত বিশ্বাস অ্যান্ড সন্সে ৯ হাজার ৫৮০ লিটার সয়াবিন ও ৫৯ হাজার ৫৬০ লিটার তেল মজুত পাওয়া যায়। এর দায়ে প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী অজিত বিশ্বাসকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।