ঘোড়াঘাটে অপহৃত বৃদ্ধ পাঁচদিন পর উদ্ধার,আটক ১

মাহতাব উদ্দিন আল মাহমুদ,ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর)-দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট থেকে নিখোঁজ হওয়া মকবুল হোসেন (৬৫) নামের এক ব্যক্তিকে ৫দিন পর উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। এ সময় পুলিশ হায়বর আলী (৬২) নামের এক অপহরণকারীকে আটক করেছে।
১৮ জুন শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার পালশা ইউনিয়নের ধাওয়া মাঝিয়ান গ্রামের মৃত তমিজ উদ্দিনের ছেলে মকবুল হোসেন (৬৫) নামের এক ব্যক্তি ধাওয়া-মাঝিয়ান গ্রামের একটি খালে মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজ হয়।

এই ঘটনায় একইদিন নিখোঁজ ব্যক্তির ছেলে জায়বর আলী ঘোড়াঘাট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

অপহরণের ৩ দিন পর গত মঙ্গলবার নিখোঁজ ব্যক্তির মোবাইল ফোন থেকে তার ছেলে ও প্রতিবেশী এক ভাইয়ের মোবাইল ফোনে কল করে অপহরণকারীরা। তারা ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে।

পরে গত ২৩ জুন বৃহস্পতিবার রাতে নিখোঁজ ব্যক্তির ছেলে মুক্তিপণের ৫ লাখ টাকা নিয়ে অপহরণকারীদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী উপজেলার ঢেউয়াপাড়া গ্রামে মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় যায়। সেখানে আগে থেকেই ঘোড়াঘাট থানা পুলিশের পৃথক কয়েকটি দল সাদা পোশাকে অবস্থান নেয়। মুক্তিপণের টাকা গ্রহণের সময় হায়বর আলী (৬২) নামের এক অপহরণকারীকে আটক কওে পুলিশ।

আটক হায়বর আলী (৬২) একই ইউনিয়নের বামনগড়া-আধাটিকা গ্রামের মৃত আমান উল্লার ছেলে।

পরে আটক হায়বরের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ঢেউয়াপাড়া গ্রামে মসজিদ সংলগ্ন একটি বাড়ি থেকে আটকে রাখা অবস্থায় নিখোঁজ মকবুল হোসেনকে উদ্ধার করে পুলিশ।

উদ্ধারের পর বৃহস্পতিবার রাতেই নিখোঁজ মকবুলের ছেলে জায়বর আলী বাদী হয়ে অপহরণের অভিযোগে ঘোড়াঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ঘোড়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু হাসান কবির বলেন, থানায় নিখোঁজ হওয়ার জিডি করার পর থেকেই নিখোঁজ ব্যক্তির সন্ধানে আমরা কাজ শুরু করি। এরই এক পর্যায়ে নিখোঁজ ব্যক্তির পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। আমাদের পরামর্শে তার পরিবার অপহরণকারীদেরকে মুক্তিপণের টাকা দিতে রাজি হয় এবং অপহরণকারীদের দেওয়া ঠিকানা অনুযায়ী টাকা হস্তান্তর করতে যায়।

তিনি আরো বলেন, আমাদেরও একাধিক দল ছদ্মবেশ ধারণ করে ওই এলাকা ঘিরে রাখে। এর এক পর্যায়ে আমরা একজন অপহরণকারীকে আটক করতে সক্ষম হই। বাকিরা কৌশলে পালিয়ে যায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার ব্যক্তি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। আসামীকে শুক্রবার সকালে দিনাজপুরের আদালতে পাঠানো হয়েছে। অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আমরা রিমান্ডের আবেদন করেছি।