বগুড়ায় ৩য় ধাপে ঘর পাচ্ছে আরো ৩৫৪ পরিবার: গৃহহীনমুক্ত ঘোষণার অপেক্ষায় ২টি উপজেলা

সঞ্জু রায়, বগুড়া: চলতি জুলাইয়ে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া ও নন্দীগ্রাম উপজেলা এখন অপেক্ষায় রয়েছে গৃহহীনমুক্ত ঘোষণার। আর ডিসেম্বরের মধ্যে পুরো জেলাকে গৃহহীন ঘোষণা করা হবে। তৃতীয় দফায় প্রধানমন্ত্রী উপহারের গৃহদান সম্পর্কিত এক সেমিনারে বগুড়া অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) উজ্জল কুমার ঘোষ এসব তথ্য জানান।
মঙ্গলবার বেলা ১২ টার দিকে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন তিনি। এ সময় উজ্জল কুমার ঘোষ বলেন, আগামী ২১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সে আনুষ্ঠানিকভাবে বগুড়ায় ৩য় পর্যায়ের ২য় ধাপে ৩৫৪ পরিবারের মাঝে গৃহ হস্তান্তর করবেন। এই গৃহ হস্তান্তরের মধ্যে দিয়ে দুপচাঁচিয়া ও নন্দীগ্রাম উপজেলা গৃহহীন মুক্ত হবে। ৩য় পর্যায়ের দ্বিতীয় দফায় ৩৫৪টি ঘরের মধ্যে আদমদীঘিতে রয়েছে ৩০টি। সদরে ৩৫, দুপচাঁচিয়ায় ১০, কাহালুতে ১২, নন্দীগ্রামে ৪০, সারিয়াকান্দিতে ১১৫, শাজাহানপুরে ৩৫, শেরপুরে ৪৫, শিবগঞ্জে ৬ ও সোনাতলায় ২৬টি গৃহ হস্তান্তর করবে সরকার। এর আগে তৃতীয় পর্যায়ের প্রথম ধাপে ৯৩০ পরিবারকে গৃহ প্রদান করা হয়েছে। সেমিনারে সভাপতি জানান, দুপচাঁচিয়া উপজেলায় ক তালিকাভুক্ত ভূমিহীন পরিবার সংখ্যা ৩২৯টি। ২১ জুলাই ১০ টি ঘর হস্তান্তরের মাধ্যমে দুপচাঁয়িার ৩২৯ উপকার ভোগী পরিবারকে ঘর বুঝিয়ে দেয় হবে। এ ছাড়া নন্দীগ্রাম উপজেলায় ক তালিকা ভুক্ত ভূমিহীন পরিবারের সংখ্যা ৪০৪ টি। ২১ জুলাই ৪০ টি ঘর হস্তান্তরের মাধ্যমে এ উপজেলারসব উপকারভোগী পরিবার ঘর বুঝে পাবেন। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক উজ্জল কুমার আরো জানান, জেলায় এখনও ৪৮২ টি গৃহহীন পরিবারের তালিকা রয়েছে। এর মধ্যে শেরপুরে সবচেয়ে বেশি ১৩০টি পরিবার। এই পরিবারদের চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই গৃহের ব্যবস্থা করা হবে। এতে পুরো জেলা গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হবে।
প্রেস ব্রিফ্রিং টি পরিচালনা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাসুম আলী বেগ। তিনি বলেন, তৃতীয় পর্যায়ের গৃহ হস্তান্তরের মাধ্যমে জেলায় মোট ৩ হাজার ৫৯৩ পরিবারের মাথা গোঁজার ঠাই নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এখনও ৪৮২টি পরিবার রয়েছে। তাদেরও এ বছরের ঘর বুঝে দেয়া হবে। মাসুম আলী বেগ জানান, এই পরিসংখ্যান জেলা প্রশাসনের কাছে ২১ জুলাই পর্যন্ত সংরক্ষিত তথ্য। এই সংখ্যা পূরণের হিসেবে বগুড়াকে গৃহহীন মুক্ত বলা হয়েছে। পরবর্তীতে যদি নতুন করে গৃহহীনের তথ্য বা তালিকা হয়, সেটি অন্তর্ভুক্ত করা হবে। সেমিনারে জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তারা ছাড়াও প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।