মাদক ব্যবসায়ীরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরলে পুনর্বাসন করবে সরকার অন্যথায় কঠোর ব্যবস্থা-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সঞ্জু রায়: গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান এমপি বলেছেন, বর্তমান সরকার মাদকের সাথে সম্পৃক্তদের পুনর্বাসনে নানামুখী উদ্যোগ নিয়েছে কিন্তু তারপরেও যারা মাদকের সাথে সম্পৃক্ত থাকবে তাদের শেষ পরিণতি হবে ভয়াবহ। শুধু তাই নয় মাদকের সাথে যুক্তদের সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। তিনি কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন মাদক ব্যবসায়ীরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরলে সরকার পুনর্বাসন করবে অন্যথায় কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স বাস্তবায়নে বাংলাদেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা করে যাচ্ছে। তবে শুধু সরকারের একার পক্ষে পুরোপুরি মাদক নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয় সেজন্যে সমাজের সকলকে মাদকের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে। অভিভাবক পর্যায়ে সচেতনতা বাড়াতে হবে এবং যুব সমাজের মাঝে মাদকের আগ্রাসন রুখতে সন্তানদের সাথে অভিভাবকের বন্ধুর মতো সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে।
বগুড়া জেলা পুলিশের আয়োজনে মঙ্গলবার দুপুরে পুলিশ লাইন্স মাঠে অনুষ্ঠিত মাদক ও সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশ ২০২২ এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। সমাবেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তার বক্তব্যে আরো বলেন, বাংলাদেশের জনগণের শতকরা ৬৫ ভাগ মানুষ কর্মক্ষম যাদের মাঝে অন্যতম আমাদের যুব সমাজ। কিন্তু মাদকের আগ্রাসনে এই যুব সমাজ যদি পথ হারিয়ে ফেলে তাহলে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন শেষ হয়ে যাবে। তাই বর্তমান সরকার কঠোর হস্তে মাদক নিয়ন্ত্রণে সমন্বিতভাবে কাজ করে যাচ্ছে। শুধু তাই নয় পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত ও মায়ানমার সীমান্ত দিয়ে যেন মাদক এইদেশে প্রবেশ করতে না পারে সেই লক্ষ্যে সীমান্তে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে এবং ইতিমধ্যে ভারতের সাথে কথা বলে সীমান্তে থাকা বিভিন্ন ফেনসিডিলের কারখানাও বন্ধ করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সমাবেশে আরো বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে ৮০ লক্ষ মানুষ নেশাগ্রস্থ। আর নেশা থেকে মুক্তিতে লজ্জা না করে সময় থাকতেই হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, নিজ দেশে সবকিছু হারানো প্রায় ১২ লক্ষ রোহিঙ্গাকে যদি বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়ে মানবতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারে এবং দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে হাজারো প্রতিবন্ধকতাকে জয় করতে পারে সেই বাংলাদেশের আজ যেকোন প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলার সক্ষমতা তৈরি হয়েছে যা আমাদের শক্তি। মন্ত্রী আরো বলেন, দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজকের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে না উঠলে দেশ এখনো অন্ধকারেই থাকতো। তিনি বলেন, যতদিন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা জীবিত থাকবেন ততদিন বাংলাদেশ আলোকিত থাকবে। এই দেশের মানুষের বিশ্বাস ও আস্থার জায়গায় রয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আর জনগণের সেই বিশ্বাসের জায়গা থেকেই আগামী নির্বাচনে আবারো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজয় হবে।
বাংলাদেশ পুলিশ রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি মো. আব্দুল বাতেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বগুড়া জেলা পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবত্তীর্ বিপিএম। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নান, বগুড়া-৫ আসনের সংসদ সদস্য হাবিবর রহমান, বগুড়া-৭ আসনের সংসদ সদস্য রেজাউল করিম, বগুড়া জেলা প্রশাসক মো: জিয়াউল হক, বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনু, সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু, বগুড়া জেলা পরিষদের প্রশাসক ডা: মকবুল হোসেন এবং বগুড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহমুদুল আলম নয়ন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন জেলা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সদস্য সচিব ও পুলিশ লাইন্স স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহাদৎ আলম ঝুনু। সমাবেশে রাজশাহী রেঞ্জের পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বিভিন্ন জেলার পুলিশ সুপার, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধিসহ সকল স্তরের প্রায় ২০ হাজার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশ শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান প্রধান অতিথি হিসেবে মাদক ব্যবসা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসায় পুনর্বাসনের লক্ষ্যে ৫০ জন পুরুষকে ৫০টি ভ্যান ও ১৫ জন নারীকে ১৫টি সেলাই মেশিন হস্তান্তর করেন। এছাড়াও সমাবেশের শুরুতে প্রধান অতিথি হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বগুড়া পুলিশ লাইন্স অফিসার্স মেসের সামনে ‘মুক্তির অমর কাব্য’ ম্যুরালের উদ্বোধন করেন।