একটি মানবিক আবেদনঃবগুড়া,সান্তাহার,আপনার একটি শেয়ারে ছেলেটি ফিরে পেতে পারে তার বাবা-মাকে

পরিচয়ঃ-নামঃ- রাহিম হোসেন জুনাইদ  বয়সঃ- ১৪/১৫ বছর (আনুমানিক) পিতাঃ- জাকির বেপারী  পেশাঃ- ফলের ব্যবসা/ আড়ৎদার
মাতাঃ- বিবি রহিমা বড় ভাইঃ- ইব্রাহীম ঠিকানাঃ- আদমদীঘি,সান্তাহার ইউনিয়ন বগুড়া।

জীবনী বৃত্তান্তঃ- ছেলেটির ভাষ্যমতে আজ থেকে ৮-৯ বছর পূর্বে সে তার বাবা-মা ও তার বড় ভাইয়ের সাথে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসে তার বড় ভাই ইব্রাহিম বিদেশ পাঠানোর উদ্দেশ্য। বড় ভাইকে তার বাবা-মা বিমানবন্দরে বিদায় দেয়ার সময় দূরভাগ্যবশত ছেলেটি তার বাবা-মা কে হারিয়ে ফেলে। তখনকার সময় ছেলেটির বয়স কম থাকার কারনে তার বাবা-মা এদিক সেদিক অনেক খুঁজাখুঁজি করে, কিন্তু সে  পায় না। এমতাবস্থায় সে ভয়ে কান্নায় জর্জরিত হয়ে উঠে,পরবর্তীতে স্হানীয় মানুষ তাকে উদ্ধার করে জনৈক এক সাদা পোশাকধারী পুলিশের কাছে সোপর্দ করলে জনৈক পুলিশ কর্মকর্তা তাকে নারায়ণগঞ্জের কোনো একটি আশ্রয়কেন্দ্রে তাকে নিয়ে যায়। সেখানেই ছেলেটির কেটে যায় প্রায় ৭-৮ বছর। এতো গুলো বছর ছেলেটি সেখানেই কাটিয়ে দেয়। আশ্রয়কেন্দ্র কতৃপক্ষ তার দেয়া ভাষ্য অনুযায়ী ঠিকানা খুঁজাখুঁজি করেও তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করতে পারে নাই। আজ ১৮/০৭/২০২২ইং ছেলেটি নিরুপায় হয়ে সেখান থেকে পালিয়ে কেরানীগঞ্জ এর বাবুবাজার ব্রীজ পার হয়ে জিনজিরা রসুলপুর টিনের মসজিদ ঘাট সংলগ্ন রাস্তার পাশে সন্ধ্যা থেকে বসে থাকে। আমি এবং আমার কিছু বন্ধু তাকে বসে থাকতে দেখলে তাকে সন্দেহজনক মনে হলে তাকে  জিজ্ঞাসাবাদ করলে এই তথ্যগুলে সে আমাদের জানায়। প্রাথমিক পর্যায়ে তাকে নাস্তা খাওয়ানোর পর তাকে অভয় দিয়ে যতটুকু মনে পড়ে তার কাছ থেকে তার জীবন বৃত্তান্ত জানতে চাই। উপরের সকল তথ্য তার মৌখিক জবান থেকে নেয়া। ছেলেটি বর্তমানে আমাদের এলাকায় আমাদের জিম্মায় আছে। দয়াকরে এই পোস্ট টি একটু শেয়ার করবেন যাতে ছেলেটি তার বাবা-মায়ের বুকে ফিরে যেতে পারে। ধন্যবাদ সবাইকে।
যোগাযোগ 01676052037 নাজমুল