তানোরে অস্ত্রের মুখে অপহরণ ও ছিনতাই

তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে কথিত পাওনা টাকা আদায়ের নামে ফিল্মি-স্টাইলে অস্ত্রের মুখে একজনকে অপহরণ ও তার কাছে থেকে ৬০ হাজার টাকা ছিনতাই করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত(২০ জুলাই) বুধবার উপজেলার তেলোপাড়া গ্রামে এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে। এমন ঘটনার খবর পেয়ে কাঁকন হাট ফাঁড়ির পুলিশ এসে অপহৃত আজিবুরকে উদ্ধার করেন। কিন্তু মামলা না দিয়ে ঘটনাটি ধাঁমাচাপা দেয়া হয়েছে। স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, তানোেরে সীমান্তবর্তী চাঁপাইনবাবগঞ্জের মাহাবুর রহমানের পুত্র আজিবুর রহমান গোদাগাড়ীর ভুসনা গ্রামে প্রায় ১শ’ বিঘা জমি ইজারা নিয়ে পেয়ারা বাগান চাষ করছেন। এমতাবস্থায় পার্শ্ববর্তী তানোরের বাঁধাইড় ইউপির তেলোপাড়া গ্রামের মোজাম্মেল হকের পুত্র আবু তালেবের বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে উঠে। বন্ধুত্বের সুযোগে আজিবুরকে পেয়ারা চাষের জমি দেবার কথা বলে কৌশলে তার কাছে থেকে আবু তালেব ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। কিন্তু জমি তো দেয়নি উল্টো তার কাছে আরো ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন তালেব। এনিয়ে দুই বন্ধুর মাঝে বিরোধের সৃষ্টি হয়। প্রত্যক্ষদর্শী সুত্র জানায়, গত ২০ জুলাই মঙ্গলবার তেলোপাড়া থেকে আবু তালেব প্রায় ১০ জনকে নিয়ে দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ফিল্মি-স্টাইলে ভুসনা পেয়ারা বাগানে হামলা করে আজিবুরকে অপহরণ করে চোঁখ বেঁধে তেলোপাড়া গ্রামে নিয়ে এসে একটি ঘরে আটকে রাখেন। এসময় তাকে মারপিট করে তার কাছে থেকে ৬০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় এবং আরো ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে তার পরিবারকে খবর দেয়া হয়। কিন্ত্ত তার পরিবার ঘটনা পুলিশকে জানালে গোদাগাড়ী থানার কাঁকনহাট ফাঁড়ির দারোগা মোমিনুল সঙ্গীয় ফোর্সসহ তেলোপাড়া গ্রামের মোজাম্মেল হকের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বিধস্ত অবস্থায় আজিবুরকে উদ্ধার করেন। এদিকে অপহরণ ও ছিনতাইয়ের ঘটনা আপোষযোগ্য অপরাধ না হলেও স্থানীয় ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ও দারোগা মমিনুল ঘটনা ধাঁমাচাপা দিয়েছে। তবে দুদিন পর এখবর ছড়িয়ে পড়লে প্রশাসনে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এবিষয়ে আজিবুর জানান, তার কাছে থেকে তালেব কোনো টাকা পাবে না, তার পরেও তালেব মাদকাসক্ত যুবকদের নিয়ে দেশীয় অস্ত্রের মুখে চোঁখ বেঁধে তাকে অপহরণ ও মারপিট করে তার কাছে থেকে ৬০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়েছে। তিনি বলেন, মামলা করতে চাইলে, জোরপুর্বক সাদা কাগজে তাদের কাছে থেকে স্বাক্ষর নিয়েছেন মেম্বার জাহাঙ্গির আলম। এবিষয়ে দারোগা মমিনুল বলেন, এটা আপোষযোগ্য অপরাধ নয়,তবে কেউ বাদি না হলে মামলা হবে কি ভাবে। এবিষয়ে ইউপি সদস্য জাহাঙ্গির আলম বলেন, এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সাময়িক এটা মিমাংসা করা হয়েছে, আগামি ২৪ জুলাই এটা নিয়ে বড় পরিসরে বসা হবে বলে জানান তিনি।