লালমনিরহাটে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অনিয়মের প্রতিবাদে এলাকাবাসীর ক্ষোভ

জেলা প্রতিনিধি,লালমনিরহাট-লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. তৌফিক আহমেদের নানান অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রতিবাদে ক্ষোভ জানিয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। রোববার(২৪ জুলাই) দুপুরের দিকে লালমনিরহাট- বুড়িমারী মহাসড়ক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে অতিসত্তর তার বদলির দাবি জানান।
একই দাবিতে গত ১৭ জুলাই জেলা সিভিল সার্জনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সহ বিভিন্ন দপ্তরে গনপিটিশন দাখিল করে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার দাবি জানান।

অলিউজ্জামান অলির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে অংশ নেয়া ভুক্তভোগীরা জানান, উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে ৫০ শয্যার আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্মান করে সরকার। বর্তমান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তৌফিক আহমেদ যোগদানের পর থেকে এ হাসপাতালকে দুর্নীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে। সরকারী ওষুধ রোগীদের না দিয়ে কালোবাজারে বিক্রি, হাসপাতাল ক্যাম্পাসের ৩০টি বড় বড় জীবন্ত মেহগনি গাছ কেটে বিক্রি করে আত্নসাৎ করেন ডা. তৌফিক আহমেদ। এতেই শেষ নয়, টাকা ছাড়া কোন ফাইলে স্বাক্ষর করেন না। ঘুষ না পেয়ে দুইজন কর্মচারীর বেতন ভাতা ৮/১০ মাস বন্ধ রাখেন। যার প্রতিবাদ করায় হয়রানী করেন। এ কারনে সাম্প্রতি সময় হাসপাতালের ৭জন কর্মচারী গণবদলির আবেদন করেন।

বক্তারা আরও জানান, দুই বছর পুর্বে নিয়োগকৃত ঠিকাদার দিয়ে চলছে রোগীদের নিম্নমানের পথ্য সরবরাহ। ভুয়া রোগী দেখিয়ে পথ্য ও ওষুধের বিল উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। সরকারী কোয়াটারে বসবাস করা কর্মচারীদের বেতনে কোন বাসাভাড়া কর্তন না করে নিজে আত্মসাৎ করেন। কোটেশন দরপত্রের কাজে নিজের এলাকার বন্ধুদের দিয়ে এ হাসপাতালে কাজের নামে ডা. তৌফিক আহমেদ লাখ লাখ টাকা আত্নসাৎ করেছেন বলে বক্তারা দাবি করেন।

চিকিৎসা সেবার মত একটি গুরুত্বপুর্ন নাগরিক অধিকার বঞ্চিত হয়ে পড়ায় স্থানীয়রা ইতিপুর্বে গনপিটিশন দায়ের করেন যার প্রেক্ষিতে কিশোরগঞ্জে বদলির আদেশ আসে। যা অর্থ আর ক্ষমতার বিনিময়ে বাতিল করে সপদে বহাল রয়েছেন। এতে আরও ভুষে উঠে সাধারন রোগী আর এলাকাবাসী।

এতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তৌফিক আহমেদের বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ তুলে তাকে আদিতমারী থেকে চলে যেতে শ্লোগান দেন স্থানীয়রা। তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার করে সীমাহীন অনিয়ম ও দূর্ণীতির অভিযোগ তুলে ধরা হয়।
মানববন্ধনে অংশ  গ্রহনকারীা অবিলম্বে হাসপাতালের সকল অনিয়ম বন্ধের দাবী জানান। তারা উর্ধতন কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা ও দায়িত্বরত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার তৌফিক আহমেদের বদলী দাবি করেন।

পরে তারা হাসপাতালের সামনেই  বিক্ষোভ করেন। এ সময় শতাধিক ভুক্তভোগী  অংশ নেয়।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত ডা. তৌফিক আহমেদের বক্তব্য জানতে অফিসে গেলে কোন বক্তব্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করে সাংবাদিকদের সাথে অশোভন আচরণ করেন।

মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, অলিয়ারুজ্জামান অলি, লালমনিরহাট সরকারী কলেজের ছাত্র আকাশ, সাধারন রোগী কাজলি বেগম, বেলাল হোসেন প্রমুখ।

সর্বশেষ সংবাদ