বগুড়ায় গোপনাঙ্গ চেপে ধরে হত্যার অভিযোগে স্ত্রী আটক

স্টাফ রিপোর্টার: বগুড়ার ধুনট উপজেলায় অন্ডকোষ চেপে ধরে আব্দুর রহিম (৬৫) নামে এক কৃষককে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। রবিবার দুপুর ১২টার দিকে ধামাচামা গ্রামে নিহতের নিজ বাড়ির উঠানে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আব্দুর রহিম উপজেলার নিমগাছি ইউনিয়নের ধামাচামা গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীন প্রামানিকের ছেলে।এ ঘটনায় রবিবার বেলা ৩টার দিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের স্ত্রী বিউটি খাতুনকে (৪০) আটক করেছে পুলিশ। সে কৃষক আব্দুর রহিমের তৃতীয় স্ত্রী।থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আব্দুর রহিম পেশায় একজন প্রান্তিক কৃষক। প্রায় ৬ বছর আগে তিনি বিউটি খাতুকে (৪০) বিয়ে করেন। বিউটি খাতুন শিয়ালী গ্রামের মৃত হাফিজার রহমানের মেয়ে। আব্দুর রহিমের তৃতীয় স্ত্রী বিউটি খাতুন। পারিবারিক বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে তাদের মাঝে প্রায় সময় ঝগড়া হতো। সকালের দিকে আব্দুর রহিম তার স্ত্রীকে ভাত রান্না করতে বলেন। কিন্তু সময়মতো ভাত রান্না করতে না পারায় রহিম তার স্ত্রীকে মারধর করে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে বিউটি খাতুন তার স্বামীর অন্ডকোষ চেপে ধরে। এতে ঘটনা স্থলেই প্রাণ হারান আব্দুর রহিম। এসময় নিহতের স্বজনরা ক্ষুব্ধ হয়ে বিউটি খাতুনকে ঘরের খুঁটির সাথে বেঁধে নির্যাতন চালায়।সংবাদ পেয়ে বিকেল ৩টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আব্দুর রহিমের লাশ উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নেন। এসময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিউটি খাতুনকে আটক করা হয়। আজ সোমবার সকালের নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শজিমেক) পাঠানো হবে।নিহতের প্রথম স্ত্রীর মেয়ে রোজিনা খাতুন জানান, ‘বিউটি খাতুন এর আগেও তার বাবাকে অন্ডকোষ চেপে ধরে হত্যার চেষ্টা করেছে।’ এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।এ বিষয়ে বিউটি খাতুন জানান, ‘আমাকে মারধরের সময় হঠাৎ করে পড়ে গিয়ে সে মারা গেছেন। আমার স্বামীকে আমি হত্যা করিনি।’ধুনট থানার ওসি কৃপা সিন্ধু বালা জানান, ‘ময়না তদন্তের প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত নিহতের মৃত্যুর প্রকৃত কারন নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার স্ত্রীকে আটক করা হয়েছে।