বগুড়ার ডালপট্টিতে মন্দিরে চুরিঃ ২৪ ঘন্টার মধ্যে চোরাই মালামাল উদ্ধারসহ গ্রেফতার ৪

সঞ্জু রায়, বগুড়া: বগুড়া শহরের নামাজগড় ঐতিহ্যবাহী ডালপট্টি বারোয়ারি কালি মন্দিরে রোববার দিবাগত রাতে এক দুধর্ষ চুরির ঘটনা ঘটে। কে বা কখন মন্দিরের পবিত্রতা নষ্ট করে কালি প্রতিমার গায়ের গহনাসহ মন্দিরে থাকা অন্যান্য দেব-দেবীর মূর্তিসহ পূজার মূল্যবান সামগ্রী চুরি করেছে তা টের পাওয়ার সাথে সাথেই এলাকায় হৈ চৈ পরে যায়। কিন্তু উক্ত চুরির ঘটনার ২৪ ঘন্টার মাঝেই সোমবার দুপুরে শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে মন্দির থেকে চুরি যাওয়া মালামাল উদ্ধার পূর্বক চুরির সাথে সম্পৃক্ত ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে বগুড়া সদর থানা পুলিশ যাতে এলাকার সনাতন ধর্মাবলম্বী সকলে পুলিশের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে উচ্ছাস প্রকাশ করেছেন।
উক্ত চুরির ঘটনায় গ্রেফতার হওয়া ৪ জন হলেন, চকসূত্রাপুর জহুরুল পাড়া এলাকার মৃত বজলু শেখের ছেলে  ফরহাদ হোসেন(৩০), মৃত মতি শেখের ছেলে নয়ন শেখ(৩০), শাজাহানপুর উপজেলার মৃত ফয়েজ উদ্দিনের ছেলে শফিকুল ইসলাম(৩২) এবং চকসূত্রাপুর কসাইপাড়া এলাকার মৃত মাহফুজুর রহমানের ছেলে হাসান আলী(৪৫)।
বগুড়া সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো: সেলিম রেজার তত্বাবধানে মালামাল উদ্ধার সহ গ্রেফতারি অভিযানের নেতৃত্বে থাকা সদর থানার এসআই বেদার উদ্দিন জানান, শহরের নামাজগড় ডালপট্টি বারোয়ারি কালিমন্দিরে রোববার দিবাগত রাত আনুমানিক ২:৫৫ মিনিটে চুরির ঘটনা ঘটে। উক্ত ঘটনায় সোমবার সকালে ডালপট্টি মন্দির কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাজেস গোয়ালা বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। তারা জানতে পারেন চোরেরা মন্দির থেকে সুকৌশলে পিতলের তৈরি ২টি গোপাল ঠাকুরের প্রতিমা, পিতলের তৈরি হনুমান প্রতিমা ১টি, পিতলের তৈরি প্রদীপ ১টি,কালি প্রতিমার গলার স্বর্ণের মালা ১টি, চাঁদির মালা ১টি, গোপালের কানের দুল ২টি, নাকের নথ ১টি, টিকলি ১টি ও সিসিটিভি মনিটর (৩২ ইঞ্চি) ১টিসহ পূজার বেশ কিছু সামগ্রী চুরি করে নিয়ে যায়। উক্ত ঘটনা জানার সাথে সাথে জেলা পুলিশ সুপার এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) দিক-নির্দেশনায় এবং সদর ওসি ও ইন্সপেক্টর (তদন্ত) জাহিদুল হকের তত্বাবধানে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা এবং সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সকাল ১১টায় শহরের চকসূত্রাপুর এলাকার জহুরুল পাড়ায় অভিযান চালিয়ে চুরির সাথে সম্পৃক্ত ফরহাদ ও নয়নকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের দেওয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী মধ্যপালশা মন্ডলপাড়ায় আরেকটি অভিযান চালায় তারা। এসময় শফিকুলের ভাড়া বাসা থেকে মন্দিরের চুরি যাওয়া সিসিটিভি মনিটর, নাকের নথ ১টি ও লোকনাথ ঠাকুরের মাথার মুকুট সহ বেশকিছু মালামাল উদ্ধার করা হয় এবং শফিকুলকেও গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতদের প্রাথমিকভাবে আবারও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী শহরের চকসূত্রাপুর কসাইপাড়া হাসান আলীর বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। সেখান থেকে উদ্ধার করা হয় পিতলের তৈরি ২টি গোপাল ঠাকুরের প্রতিমা, পিতলের তৈরি হনুমান প্রতিমা ১টি ও পিতলের তৈরি প্রদীপসহ অন্যান্য মালামাল উদ্ধার করা হয়। এসময় ৪৫ বছর বয়সী হাসান আলীকে চোরাই মালামাল রাখার অপরাধে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।
এদিকে চুরি যাওয়া মালামাল দ্রুততম সময়ে উদ্ধার প্রসঙ্গে ডালপট্টি বারোয়ারি কালিমন্দিরের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের সহ-সভাপতি সুজিত জয়সোয়াল জানান, তারা প্রতিদিন মন্দিরে যে দেব—দেবীর পূজা করে থাকেন তা চুরি হওয়াতে তারা বেশ ভেঙ্গে পরেছিলেন। কিন্তু সৃষ্টিকর্তার অশেষ কৃপায় বগুড়া জেলা পুলিশের দক্ষতা ও দ্রুততম অভিযানের ফলে চুরি যাওয়া মালামাল উদ্ধারসহ আসামী গ্রেফতার হওয়ায় তারা কৃতজ্ঞ জেলা পুলিশ সুপার, সদর ওসি সহ সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি।
সার্বিক বিষয়ে মুঠোফোনে পৃথকভাবে বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ সেলিম রেজা জানান, ডালপট্টি মন্দিরটি বগুড়া শহরের অত্যন্ত পুরাতন ও সুপরিচিত মন্দির। উক্ত মন্দিরে ঘটা অনাকাঙ্খিত এই ঘটনা জানার সাথে সাথেই জেলা পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে অত্যন্ত নিবিড়ভাবে ও দ্রুত অভিযান পরিচালনা করা হয়। ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার পূর্বক চুরি যাওয়া মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে যা প্রশান্তির বিষয়। মঙ্গলবার গ্রেফতারকৃতদের আদালতে প্রেরণ করা হবে মর্মে জানান তারা।