ধর্ষণের পর স্কুলছাত্রীকে হত্যা, লাশ গুমে বস্তায় ভরে পুকুরে

শেরপুরে বস্তাবন্দি অবস্থায় পুকুর থেকে মিম আক্তার (১৪) নামে চতুর্থ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীর মর‌দেহ উদ্ধারের ঘটনায় এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১৪। মঙ্গলবার রাতে জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলায় হাতিবান্ধা ইউনিয়নের ঘাগড়া কামারপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই যুবকের নাম আল আমিন (২৭)। তার বাড়ি ওই গ্রামেই। পেশায় তিনি অটোচালক। বুধবার (২৭ জুলাই) সকালে শেরপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব এ তথ্য জানান র্যাব-১৪, সিপিসি-১, জামালপুর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার স্কোয়াড্রন লিডার আশিক উজ্জামান। তিনি জানান, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় আল আমিন ভিকটিমকে ফুসলিয়ে ঝিনাইগাতী উপজেলার বাকাকুড়া এলাকার কালঘোষা নদীর তীরে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে ঘটনা জানাজানি হওয়ার ভয়ে ভিকটিমের গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এরপর ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য মরদেহ বস্তাবন্দি করে পাশের সাঈদ মিয়ার পুকুরে নিয়ে ফেলে রাখে। উল্লেখ্য, ২৪ জুলাই বিকেলে উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের বাকাকুড়া গ্রামের একটি পুকুর থেকে বাকাকুড়া আদর্শগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী মিম আক্তারের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই ঘটনায় স্কুলছাত্রীর পিতা মমিন মিয়া বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে ঘটনার বিষয়ে ছায়া তদন্ত শুরু করে র্যাব-১৪।