লালমনিরহাটে বন্যার্তদের মাঝে ত্রান বিতরণ শুরু

জেলা প্রতিনিধি, লালমনিরহাট-উজানের ঢল ও বর্ষণে লালমনিরহাটের তিস্তা নদীতে সৃষ্ট বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে শুকনো খাবার ও ত্রান বিতরণ শুরু হয়েছে। বুধবার (৩ আগস্ট)  বিকেলে আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচার চৌরাহায় বানভাসী মানুষদের খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জি আর সারোয়ার।
বিতরণকৃত খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে,চাল-১০ কেজি, দেশী মশুর ডাল-১ কেজি, আয়োডিনযুক্ত লবন-১ কেজি,
চিনি -২ কেজি, ভোজ্য তেল – ১ লিটার, মরিচের গুড়া-১০০ গ্রাম, হলুদের গুড়া-২০০ গ্রাম, ধনিয়া গুড়া -১০০ গ্রাম। এতে প্রত্যেক পরিবারের মাঝে মোট ১৪. ৪০ কেজি সামগ্রী
বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও ওই ইউনিয়নে ৪৫০ পরিবারকে একই খাদ্য বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
এদিকে জেলায় চলমান বন্যায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মেট্টিক টন জিআর চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
এর মধ্যে আদিতমারীতে ২০ মেট্টিক টন ও সদর উপজেলায় ২০ মেট্টিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
তালিকা অনুযায়ী বরাদ্দকৃত এসব চাল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হবে।
এ বিষয়ে আদিতমারী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মফিজুল ইসলাম বলেন, আদিতমারী উপজেলায় ৪৫০ পরিবারের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ শুরু হয়েছে। আরও ২০ মেট্টিক টন চাল তালিকা করে বিতরণ করা হবে।
খাদ্য বিতরণকালে আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জি আর সারোয়ার বলেন, জেলা ও উপজেলা প্রশাসন থেকে বানভাসীদের সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। শুকনো খাবার বিতরণ করা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ থেকে তালিকা করে বরাদ্দকৃত চাল বিতরণ করা হবে। প্রয়োজনে আরও চাহিদা পাঠানো হবে।
এসময় আদিতমারী উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার রওজাতুন জান্নাত, উপজেলাপ্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মফিজুল ইসলাম, মহিষখোচা ইউনিয়নের সচিব আনোয়ারুল হক, ইউপি সদস্য আব্দুল মজিদ হোছত, আব্দুল কুদ্দুস প্রমুখ।