তানোরে একজনের নামে একাউন্ট অন্যজনের নামে চেকের মামলা-রুপালী ব্যাংকের প্রতারনা

তানোর প্রতিনিধি: রাজশাহীর তানোরে রুপালী ব্যাংকে বাদল নামের একব্যক্তির একাউন্টের চেক দিয়ে দুলাল নামের আরেক ব্যাক্তির নামে চেক ডিজনার করে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার লিগ্যাল নোটিশ পাঠানোর পর আদালতে মামলা হয়েছে। মামলার বাদী, তানোরপাড়াগ্রামের কামরুল ইসলাম। সে আমজেদ আলীর পুত্র। ফলে রুপালী ব্যাংকের এমন তুঘলকি কান্ডে চরম বিব্রত ভুক্তভোগী দুলাল। এতে করে ব্যাংকের এমন প্রতারনা মুলুক কর্মকান্ডে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এখবর ছড়িয়ে পড়লে ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার শাস্তির দাবিতে ফুঁসে উঠেছে স্থানীয়রা। সেই সাথে মামলার বিবাদী কামরুল কিভাবে চেক ডিজনার করেছে, তার বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা নিতে জোর দাবি উঠেছে। গত মঙ্গলবার বিকেলের দিকে, তানোর পৌর সদর গোল্লাপাড়া বাজারে দুলাল নামের এক দরিদ্র কৃষক জানান, আমার নামে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশে আমার নিকট থেকে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা পাবে কামরুল নামের এক ব্যক্তি। তার কাছ থেকে আমি নাকি রুপালী ব্যাংক তানোর শাখার চেক দিয়ে টাকা নিয়েছি এই মর্মে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। অথচ আমি জীবনে কোনদিন রুপালী ব্যাংক কোথায় সেটাও জানিনা। ব্যাংকে একাধিকবার গেলেও আমাকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আবার আমার নামে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার চেক ডিজনার মামলা হয়েছে। আমার আইনজীবি বারবার বলছে ব্যাংকে একাউন্ট না থাকার প্রত্যায়ন লাগবে। কিন্তু কোন কিছুই দিচ্ছে না। আমি অসহায় দরিদ্র কামলা দিয়ে খায়। তার এমন কোথায় নোটিশ নিয়ে ব্যাংকে যাওয়া হলে ম্যানেজার রিজাউল ইসলাম জানান, যে একাউন্টের চেক ডিজনার হয়েছে সে একাউন্ট দুলালের না। এই একাউন্ট বাদল নামের আরেক জনের। তাহলে দুলালের নামে কিভাবে ডিজনার হল জানতে চাইলে তিনি জানান এটা আমি কি করে বলব। দুলালের নামে মামলাও হয়েছে, আবার তার একাউন্ট না তাহলে কার নামে ডিজনার হয়েছে প্রশ্ন করা হলে উত্তরে বলেন, এটা প্রতারনা করা হয়েছে, কে করেছে জানতে চাইলে তিনি জানান, কোর্ট আমাদের কাছে তথ্য চাইলে আসল তথ্য দেওয়া হবে বলে দায় সারেন এই ম্যানেজার। ব্যাংক থেকে বাহির হতেই গেটে একজন জানান, দুলালের নামে কোন একাউন্ট নেই এই মর্মে একটি স্টেটমেন্ট দেওয়া যাবে। এই স্টেটমেন্ট নিতে দুলালকে ১১৫ টাকা দিতে হয়েছে। বাহিরে এসে দুলাল বলেন, এই কাগজ নেওয়ার জন্য কতবার ধর্না দিয়েছি পাত্তা দেয়নি। আমার নামে প্রতারনা মামলা করেছে কামরুল। এই কাগজ দিলে জামিন হবে, তাছাড়া হবে না। যার হিসাব নম্বর ১৭২১৫ চেক নম্বর SBLR ১২৫৯৯০৯৮ তারিখ ২২/১১/২০২০ইং। বুধবার দুলালের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জামিন হলাম, রি কল নেওয়ার জন্য বসে আছি। মামলার বাদী, তানোরপাড়াগ্রামের কামরুল ইসলাম। সে আমজেদ আলীর পুত্র। বিবাদী পৌর সদর গুবিরপাড়াগ্রামের দুলাল হোসেন। সে মোন্তাজের পুত্র। রুপালী ব্যাংক তানোর শাখার ম্যানেজার রিজাউল ইসলাম জানান, এটা কিভাবে হল আমার জানা নেই বলে এড়িয়ে যান।